1. clients@www.dainikbangladesh71sangbad.com : DainikBangladesh71Sangbad :
  2. frilixgroup@gmail.com : Frilix Group : Frilix Group
  3. kaziaslam1990@gmail.com : Kazi Aslam : Kazi Aslam
শনিবার, ১০ জুন ২০২৩, ০৬:০৬ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
জরুরী নিয়োগ চলছে জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল দৈনিক বাংলাদেশ ৭১ সংবাদ দেশের প্রতিটি বিভাগীয় প্রতিনিধি, জেলা,উপজেলা, স্টাফ রিপোর্টার, বিশেষ প্রতিনিধি, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি, ক্যাম্পাস ও বিজ্ঞাপন প্রতিনিধি বা সাংবাদিক নিয়োগ চলছে। সাংবাদিকতা সবার স্বপ্ন, আর সেই স্বপ্ন পূরণ করতে আপনাদেরকে সুযোগ করে দিচ্ছে দৈনিক বাংলাদেশ ৭১ সংবাদ দেখিয়ে দিন সাহসীকতার পরিচয়, অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে সাংবাদিকতার বিকল্প নেই। আপনার আশপাশের ঘটনা তুলে দরুন সবার সামনে।হয়ে উঠুন আপনিও সৎ, সাহসী সাংবাদিক। দৈনিক বাংলাদেশ ৭১ সংবাদ পোর্টাল নিয়োগ এর নিদের্শনাবলী: ১/জীবন বৃত্তান্ত ( cv) ২/জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি। ৩/সদ্যতোলা পাসপোর্ট সাইজের ছবি ১কপি। ৪/সর্বনিম্ন এইচএসসি পাস/সমমান পাস হতে হবে। ৫/বিভিন্ন নেশা মুক্ত হতে হবে। ৬/নতুনদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। ৭/স্মার্টফোন ও ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে। ৮/স্মার্টফোন ব্যবহারে পারদর্শী হতে হবে। ৯/দ্রুত মোবাইলে টাইপ করার দক্ষতা থাকতে হবে। ১০/বিভিন্ন স্থানে ভ্রমন এর মানসিকতা থাকতে হবে। ১১/সৎ ও পরিশ্রমী হতে হবে। ১২/অভিজ্ঞতার প্রয়োজন নেই। ১৩/নারী-পুরুষ আবেদন করতে পারবেন। ১৪/রক্তের গ্রুপ যুক্ত করবেন। ১৫/স্থানীয় দের সাথে পরিচয় লাভ করতে হবে। ১৬/উপস্থিত বুদ্ধি, সঠিক বাংলা বানান, ও শুদ্ধ বাংলায় পারদর্শী হতে হবে। ১৭/ পরিশ্রমী হতে হবে যোগাযোগের জন্য ইনবক্সে মেসেজ করুন cv abuyousufm52@gmail.com দৈনিক বাংলাদেশ ৭১সংবাদ মোবাইল নং(01715038718)

বগুড়া সদর উপজেলায় বারপুরে প্রভাবশালী কর্তৃক চোর সন্দেহে মানসিক ভারসাম্যহীন যুবককে হাত পা বেধে নির্যাতন,মারপিটের ভিডিও ভাইরাল।

Reporter Name
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২৩ মে, ২০২৩
  • ৩১ বার পড়া হয়েছে

মো. ওয়াসিম রেজা নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

২৩ মে মঙ্গল বার দিবাগত রাত আনুমানিক ১২ টার সময় বগুড়া সদর উপজেলার নিশিন্দারা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের বারপুর লাইলীপাড়া গ্রামে চোর সন্দেহে এক মানসিক ভারসাম্যহীন যুবককে মারধর করার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে৷ নির্যাতিত যুবকের নাম সাব্বির হোসেন (২৩)।

৩ মিনিটের ভাইরাল হওয়া এই ভিডিওতে দেখা যায়, লাঠি ও কাঠের বাটাম দিয়ে বেদম মারপিট করছে বারপুর লাইলীপাড়া গ্রামের প্রভাবশালী জনৈক আবুল হোসেন, রাকিব হাসান ও রাজন মিয়া নামের ৩ জন ব্যক্তি। এই ভিডিও চিত্রে দেখা যায় এক মানসিক যুবককে প্রথমে টেনে হিচড়ে মাটিতে ফেলে দেয় অভিযুক্ত ব্যক্তিরা। তারপর তার শরীরে লাঠি ও কাঠের বাটাম দিয়ে শুরু করে বেদম প্রহার। মারধরের এক পর্যায়ে আহত যুবকের হাত দড়ি দিয়ে পিছমোড়া করে বাধা হয়, আর পা দুটি বেধে রাখা হয় পাশের গাছের গোড়ালীর সাথে। মানসিক ভারসাম্যহীন যুবকটি বারবার তাদের কাছে হাতজোর করে মাফ চাইলেও থামেনা মারধরের পরিমাণ।

যুবকটি একসময় পানি খেতে চাইলে এলাকার প্রভাবশালী আবুল হোসেন, রাকিব হাসান ও রাজন তাকে পানি না দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। এসময় সাব্বির নামের অই যুবক তাদের পা ধরে মাফ চাওয়ার চেষ্টা করলে পুনরায় বেধড়ক প্রহার শুরু করে। একপর্যায়ে পাগলপ্রায় যুবকটি অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে যায়। কিন্তু তাকে বাঁচাতে কেউকে এগিয়ে আসতে দেখা যায়নি। তখনো উপস্থিত অনেককেই অশ্লীল ভাষায় বন্দি যুবককে গালিগালাজ করতে শোনা যায়। সে অজ্ঞান হবার পরে আহত যুবকের মুখের উপর পানি ছিটিয়ে হুশ ফেরানোর চেষ্টা করে অভিযুক্ত সহ আরো অনেকে। বেশ কিছুক্ষণ পরে তার হুঁশ ফিরলে দ্বিতীয় দফায় মারপিট করে ঐ প্রভাবশালী মহল।

বর্তমান আধুনিকতার যুগে এ কেমন বর্বরতা !! এ কেমন নিষ্ঠুরতা !!উপস্থিত অনেকের মধ্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন বলেন , ছেলেটাকে অযথা মারধর করা হলো। তার কাছে থেকে কোন চুরির মালামাল তো পাওয়ায় যায়নি নূন্যতম একটা সূচও তার কাছে নাই।সে মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তি বলে অনেকেই জানে। তবুও কিছু ব্যক্তি তাদের ক্ষমতার জানান দিতে এইভাবে হাত পা বেধে নির্যাতন করলো। স্থানীয়ভাবে তারা প্রভাবশালী হওয়ায় এই ঘটনায় কেউ প্রকাশ্যে প্রতিবাদ করার সাহস পায়নি। তবে এই মারপিটের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ায় সচেতন মহলে উঠেছে নিন্দা ও ক্ষোভের ঝড়।

সচেতন অনেকেরই প্রশ্ন, একজন মানসিক ভারসাম্যহীন যুবকের কি সুস্থভাবে স্বাধীনভাবে বাঁচার অধিকার নেই?? সে যদি প্রকৃত অপরাধীও হয় তবুও কি এইভাবে নির্মম নির্যাতন করার অধিকার কথিত মাতব্ব্রর আছে?? তারা কেন নিজের হাতে আইন তুলে নিলো? তার উপর এমন অকল্পনীয় নির্যাতনের ভিডিও ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। সে যদি প্রকৃত অপরাধীই হতো তাহলে তাকে ছেড়ে দেওয়া হলো কেন?? এমন বর্বর নির্যাতন করার অধিকার তাদের কে দিলো?? তারা কেন নিজের হাতে আইন তুলে নিলো?? তার সাথে হওয়া এমন জঘন্য অপরাধের সাথে যারা জড়িত সেইসব অপরাধীদের অতিদ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানিয়েছেন বগুড়ার সুধী ও সচেতন মহল।

জনাতে চাইলে বগুড়া সদর থানার ওসি নুরে আলম সিদ্দিকী ঘটনা সত্যতা স্বীকার করে বলেন আমি বিষয়টি শুনেছি। আজ সকালে ফোর্স পাঠিয়েছিলাম। মানষিক প্রতিবন্ধী নির্যাতনের শিকার মো.সাব্বির হোসেন কে পাওয়া যাচ্ছে না।
তাকে খোঁজার চেষ্টা চলছে।
সাব্বিরের পরিবার থেকে এখনো থানায় কোন অভিযোগ বা মামলা করেননি। মামলা করলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
Copyright © 2020 DainikBangladesh71Sangbad
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )
%d bloggers like this: