1. clients@www.dainikbangladesh71sangbad.com : DainikBangladesh71Sangbad :
  2. frilixgroup@gmail.com : Frilix Group : Frilix Group
  3. kaziaslam1990@gmail.com : Kazi Aslam : Kazi Aslam
ক্ষেতলালে আমন মৌসুমে সার নিয়ে বিপাকে কৃষক সারের সংকট। - dainikbangladesh71sangbad
শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
জরুরী নিয়োগ চলছে জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল দৈনিক বাংলাদেশ ৭১ সংবাদ দেশের প্রতিটি বিভাগীয় প্রতিনিধি, জেলা,উপজেলা, স্টাফ রিপোর্টার, বিশেষ প্রতিনিধি, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি, ক্যাম্পাস ও বিজ্ঞাপন প্রতিনিধি বা সাংবাদিক নিয়োগ চলছে। সাংবাদিকতা সবার স্বপ্ন, আর সেই স্বপ্ন পূরণ করতে আপনাদেরকে সুযোগ করে দিচ্ছে দৈনিক বাংলাদেশ ৭১ সংবাদ দেখিয়ে দিন সাহসীকতার পরিচয়, অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে সাংবাদিকতার বিকল্প নেই। আপনার আশপাশের ঘটনা তুলে দরুন সবার সামনে।হয়ে উঠুন আপনিও সৎ, সাহসী সাংবাদিক। দৈনিক বাংলাদেশ ৭১ সংবাদ পোর্টাল নিয়োগ এর নিদের্শনাবলী: ১/জীবন বৃত্তান্ত ( cv) ২/জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি। ৩/সদ্যতোলা পাসপোর্ট সাইজের ছবি ১কপি। ৪/সর্বনিম্ন এইচএসসি পাস/সমমান পাস হতে হবে। ৫/বিভিন্ন নেশা মুক্ত হতে হবে। ৬/নতুনদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। ৭/স্মার্টফোন ও ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে। ৮/স্মার্টফোন ব্যবহারে পারদর্শী হতে হবে। ৯/দ্রুত মোবাইলে টাইপ করার দক্ষতা থাকতে হবে। ১০/বিভিন্ন স্থানে ভ্রমন এর মানসিকতা থাকতে হবে। ১১/সৎ ও পরিশ্রমী হতে হবে। ১২/অভিজ্ঞতার প্রয়োজন নেই। ১৩/নারী-পুরুষ আবেদন করতে পারবেন। ১৪/রক্তের গ্রুপ যুক্ত করবেন। ১৫/স্থানীয় দের সাথে পরিচয় লাভ করতে হবে। ১৬/উপস্থিত বুদ্ধি, সঠিক বাংলা বানান, ও শুদ্ধ বাংলায় পারদর্শী হতে হবে। ১৭/ পরিশ্রমী হতে হবে যোগাযোগের জন্য ইনবক্সে মেসেজ করুন cv abuyousufm52@gmail.com দৈনিক বাংলাদেশ ৭১সংবাদ মোবাইল নং(01715038718)

ক্ষেতলালে আমন মৌসুমে সার নিয়ে বিপাকে কৃষক সারের সংকট।

Reporter Name
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৯৪ বার পড়া হয়েছে

ক্ষেতলাল (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি:

জয়পুরহাটে ক্ষেতলাল উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে বিভিন্ন হাট-বাজারে ও মোড়ে খোলা বাজারে বিভিন্ন প্রকার সারের দাম বেশি নেওয়ায় বিপাকে পড়েছেন আমন চাষিরা। এ নিয়ে হতাশা ব্যক্ত করেছেন সার কিনতে আসা কৃষকরা।

ভরা বর্ষায় তীব্র তাপপ্রবাহ চলতে থাকায় গভীর নলকূপের মাধ্যমে সেচ দিয়ে জমি চাষ করতে হচ্ছে। তার ওপর বাড়তি দামে সার কিনে আবাদ করতে বেশি খরচ পড়বে বলে কৃষকরা জানান।

জানা গেছে, উপজেলায় সরকারিভাবে ১১ জন বিসিআইসি এবং ৩০ জন বিএডিসি ডিলারসহ মোট ৪১ জন ডিলারের মাধ্যমে উপজেলার তালিকাভূক্ত ৫৪ জন খুচরা বিক্রেতাসহ সাধারণ কৃষকদের মাঝে সার বিক্রয় করা হয়।
এ উপজেলায় ফসল উৎপাদনে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে ৩০ হাজার ৩৪১ মেট্রিক টন রাসায়নিক সারের চাহিদা রয়েছে। চলতি মৌসুমে এ পর্যন্ত মাত্র ১৪ হাজার ৪২৬ মেট্রিক টন সার বরাদ্দ হয়েছে। ওই বরাদ্দকৃত সার দিয়ে চলতি মৌসুমে রোপণকৃত ১০ হাজার ৬৪০ হেক্টর আমন ধানসহ অন্যান্য ফসল উৎপাদন বৃদ্ধিতে সারের চাহিদা পুরণ সম্ভব। কিন্তু বাজারে সার সংকট দেখিয়ে উপজেলার অধিকাংশ ডিলার ও খুচরা বিক্রেতা সরকারি মূল্যের চেয়ে বেশি মূল্যে বিক্রয় করছে এমন অভিয়োগ উঠেছে।

ফলে বেশি মূল্যে ক্রয় করতে গিয়ে বিপাকে পড়েছে কৃষকরা। সারের চাহিদা পূরণ ও ভবিষ্যৎ সংকট মোকাবেলায় গত ২৪ আগস্ট উপজেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির সভায় আবারো ৪ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন অতিরিক্ত সার বরাদ্দ চেয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে সুপারিশ পাঠানো হয়েছে। এর মধ্য টিএসপি ১৫০০ মেট্রিক টন, এমওপি ২০০০ মেট্রিক টন ও ডিএপি ১০০০ মেট্রিক টন। এ সব সার দ্রত বরাদ্দ এলে কিছুটা সংকট মোকাবেলা সম্ভব হবে এমন দাবি কৃষি বিভাগের।
কৃষকদের অভিযোগ, বর্তমানে এ উপজেলার বিভিন্ন বাজারে সারের দোকানে সরকারি মূল্যের চেয়ে প্রতি বস্তা ইউরিয়া ১ হাজার ১০০ টাকার পরিবর্তে ১ হাজার ২০০ হতে ১ হাজার ৩০০, ডিএপি ৮০০ টাকার পরিবর্তে ১ হাজার হতে ১ হাজার ১০০, এমওপি ৭৫০ টাকার পরিবর্তে ১ হাজার হতে ১ হাজার ২০০ ও টিএসপি ১ হাজার ১০০ টাকার পরিবর্তে ১ হাজার ৫০০ হতে ১ হাজার ৬০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

উপজেলার বড়াইল ইউনিয়নের তেলিহার গ্রামের কৃষক লুৎফর রহমান বলেন, উপজেলার করিমপুর ত্রি-মোহনী বাজারের সারের দোকান থেকে টিএসপি সার সরকারি মূল্য প্রতি কেজি ২২ টাকা হলেও ৩৪ টাকা ও এমওপি ১৫ টাকার পরিবর্তে ২৩ টাকা দরে ক্রয় করতে বাধ্য হয়েছি। ফলে আমন ফসল উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে।

কৃষকদের অভিযোগ, খোলা বাজারে সারের মূল্য বৃদ্ধিতে উপজেলা প্রশাসনের তেমন কোনো নজরদারি নেই। সেই সুযোগে ডিলার ও খুচরা ব্যবসায়ীরা সরকারি মূল্যের চেয়ে বেশি মূল্যে সার বিক্রি করছে। সারের মূল্য তালিকা দোকানের সামনে ঝুলানো থাকলেও দোকানের ভিতরের চিত্র ভিন্ন। আবার সার বিক্রয়ের কোন রশিদ দেওয়া হচ্ছে না। এ অবস্থা থেকে বর্গাচাষী এবং ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের ফসল উৎপাদন খরচ কমাতে সারের মূল্য স্বাভাবিক রাখতে প্রশাসনের নজরদারি বাড়ানোর জোড় দাবি জানিয়েছেন।

খুচরা সার বিক্রেতা উপজেলার স্বপন বলেন, ডিলাররা বস্তা প্রতি দাম বেশি নেয়ায় কৃষকদের কাছ হতে দাম বেশি নিতে বাধ্য হচ্ছি। উপজেলার চৌমুহনী বাজারের সার ডিলার বেলাল হোসেন বলেন, সরকারি মূল্যের বেশি নেয়ার সুযোগ নেই। যদি কোন খুচরা বিক্রেতা বেশি মূল্য নিলে তার দ্বায় ওই বিক্রেতার।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান বলেন, কৃষকরা যাতে সরকারি মূল্যে সার সংগ্রহ করতে পারে সেই জন্য প্রত্যেক ইউনিয়নে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা ডিলার ও খুচরা বিক্রেতাদের দোকানে নজরদারি করছে। কৃষকরা জমিতে অতিরিক্ত সার ব্যবহার এবং রবি মৌসুমের জন্য আগাম সার সংগ্রহ না করলে কোন সংকট থাকবে না। তবুও সংকট মোকাবেলায় আরো ৪ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন সার বরাদ্দের সুপারিশ পাঠানো হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির সভাপতি ইশতিয়াক আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, উপজেলায় সারের সংকট নেই, পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। কোন ডিলার বা খুচরা বিক্রেতা সারের মূল্য বেশি নেয়ার অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
Copyright © 2020 DainikBangladesh71Sangbad
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )
%d bloggers like this: